mainpageads

আইনের আওতায় দু’ শিশু হত্যাকারির সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে সরব থাকবো- পুলিশ সুপার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নামোশংকরবাটি এলাকার ফতেপুর গ্রামের দু’ শিশুকন্যা সুমাইয়া খাতুন মেঘলা ও মেহজাবিন আক্তার মালিহা হত্যাকান্ডকে পশুর কাজ উল্লেখ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টিএম মোজাহিদুল ইসলাম বলেছেন, ‘ হত্যাকারীকে আইনের আওতায় সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে যতদিন চাঁপাইনবাবগঞ্জে ততদিন সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবো। শাস্তি নিশ্চিত করতে সরব থাকবো। বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি পৌর এলাকার রাজারামপুর হামিদুল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির এক সমাবেশে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে একথা বলেন।
তিনি বলেন, সুদের বলি হয়েছে দু’ নিষ্পাপ শিশুকন্যা। সুদের টাকার ভারে জর্জরিত লাকি আক্তার সামান্য স্বর্ণালংকারের লোভে দু’ শিশুকন্যাকে হত্যা করেছে। সুমাইয়া ও মালিহার দেহে থাকা স্বর্ণালংকার খুলে তা ২১ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেনা পরিশোধ করেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি এলাকায় সুদের ব্যবসা বন্ধে সবাইকে এগিয়ে আসার এবং মসজিদে মসজিদে ইমামদের ভুমিকা রাখার আহবান জানান।
তিনি বলেন, ‘ এ এলাকায় স্বামী বিদেশ থেকে স্ত্রীর কাছে টাকা পাঠায়। স্ত্রী সেই টাকা নিয়ে সুদের ব্যবসা করে। এটি ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে হারাম। এটি বন্ধ করতে হবে’।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির আহবায়ক অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুল হান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ কমিউিনিটি পুলিশিং কমিটির আহবায়ক রুহুল আমীন, সাংবাদিক শহীদুল হুদা অলক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ বণিক সমিতি’র সহসভাপতি আব্দুল হান্নান হানু মিয়া, নামোশংকরবাটি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আসলাম কবির, পৌরসভার কাউন্সিলর আফজাল হোসেন পিন্টু, সিদ্দীকা সিরাজুম মনিরা, মেঘলার পিতা মিলন রানা, মালিহার পিতা আব্দুল মালেক, স্থানীয় জুয়েল রানা। সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) চৌধুরী জোবায়ের আহম্মেদ।
সমাবেশে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান, সমাজকর্মী আব্দুর রাজ্জাক, পৌর কাউন্সিলর মইদুল ইসলাম।
সমাবেশে দু’ শিশুকন্যা হত্যা মামলাসহ এলাকায় আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিউজ/ নিজস্ব প্রতিবেদক/ ২৩-০-১৭